Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / Prime News / দারোয়ান থেকে স্কুলের প্রধান শিক্ষক

দারোয়ান থেকে স্কুলের প্রধান শিক্ষক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- আপনার জীবন বদলে দেয়ার জন্য একজন শিক্ষকই যথেষ্ট। আর এক্ষেত্রে উৎকৃষ্ট উদাহরণ হচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের মাইকেল এটকিন্স। তার জীবন বদলে দিয়েছেন তারই প্রাথমিক স্কুলের একজন শিক্ষক। ফলে স্কুলের সামান্য দারোয়ান থেকে তিনি আজ প্রধান শিক্ষক হিসেবে উত্তীর্ণ হয়েছে। তার জীবনে এই বিশাল পরিবর্তন এসেছে স্কুল ছাড়ার বেশ কয়েক বছর পর।

যদিও দারোয়ান থেকে প্রধান শিক্ষকের এই দীর্ঘ যাত্রাপথ রূপকথার গল্পের মতো অতটা সহজ আর আনন্দময় ছিলো। এজন্য তাকে পাড়ি দিতে হয়েছে কণ্টকাকীর্ণ দীর্ঘ পথ। তবে কিছু বন্ধুত্বপূর্ণ নির্দেশনার জন্য তিনি এখনও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

 

 

দারোয়ান থাকতে এক সময় তিনি যে দরজা পরিষ্কার করতেন, আজ সেই দরজাই তার জন্য খুলে দেয়া হয়েছে শিক্ষা বিস্তারের জন্য।

ডেনভারের লোয়ারি এলমেন্টারি স্কুলে চাকরির আগে মাইকেল স্থানীয় কয়েকটি স্কুলের রক্ষী হিসেবে কাজ করতেন। তিনি যে এলাকায় বড় হয়েছেন এখন তিনি সেখানকারই একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক হয়েছেন।

তিনি যখন স্কুলে পড়তেন তখন পড়ালেখা করাটা তিনি উপভোগ করলেও কিছু বিষয় মানিয়ে চলা তার জন্য কঠিন হয়ে পড়ে। কারণ তিনি বুঝতে পারতেন যে কিছু শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে ভেদাভেদ করতেন। তারা কোথা থেকে এসেছে, তারা দেখতে কেমন, এমন কিছু বিষয়ের ভিত্তিতে তারা শিক্ষার্থীদের মধ্যেই পার্থক্য করতেন।

 

 

এ বিষয়ে মাইকেল এটকিন্স বলেন, ‘স্কুলিং আমার জন্য অনেকটা মাথা নিচু করে সব সহ্য করার মতো বিষয় ছিলো।’

হাইস্কুল ছাড়ার পর যথাযথ নির্দেশনার অভাবে দিশাহারা হয়ে পড়েন মাইকেল। কেননা উচ্চশিক্ষা কিভাবে গ্রহণ করতে হয় তাকে সেটা দেখানোর জন্য কেউ ছিল না। তার পরিবারেরও তাকে গাইড করার মতো অবস্থা ছিল না।

কাজেই তিনি চাকরির পাশাপাশি স্টেট কলেজে ভর্তি হন। তার দ্রুত অর্থ উপার্জন করা জরুরি হয়ে পড়ে। কেননা তিনি ১৯ বছর বয়সেই বাবা হয়েছিলেন। তিনি একটা কাজ খুব ভাল পারতেন। সেটা হল শিশুদের সঙ্গে তিনি সহজেই মিশে যেতে পারতেন। এই দক্ষতা তিনি শিখেছেন তার মায়ের কাছ থেকে। কারণ তার মা ডে কেয়ার সেন্টারে কাজ করতেন।

 

 

এজন্য তিনি কাছের একটি স্কুলে পার্ট টাইম ব্যবসা শিক্ষার ক্লাস করতে যান। সেই সঙ্গে সেখানকার সহকারী শিক্ষক পদে চাকরির আবেদনও করেন।

তিনি শিক্ষকের পদে চাকরিটা না পেলেও কোনোভাবে বিভিন্ন স্কুলের তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে কাজ শুরু করেন। এমন একটি স্কুলের প্রিন্সিপাল ছিলেন তার দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষিকা।

‘তিনি আমাকে দেখেই আলিঙ্গন করেন, আমার পরিবারের সম্পর্কে জিজ্ঞেসা করেন। আমি তাকে বললাম আমি বাচ্চাদের সাথে কাজ করতে চাই।’

 

 

সেখানে থেকে, ক্যারোলিন রেইডলিন – যাকে স্কুলে থাকাকালীন মিসেস ব্রাউন বলে ডাকা হত, তিনি মাইকেলের জন্য স্কুলের রিডিং ও রাইটিং প্যারা প্রফেশনালের পদ তৈরি করেন।

‘তিনি আমার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাওয়া শিক্ষকদের মধ্যে এমন একজন ছিলেন, যিনি আমার মধ্যে কয়েকটি ভাল জিনিস বপন করতে পেরেছেন। তার মধ্যে দুটি হল – আত্মসম্মানবোধ এবং ভালবাসা। তিনি খুব যত্নশীল ছিলেন। তিনি স্কুলের তথাকথিত পড়ালেখার বাইরেও অনেক প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতেন। যেগুলো অনেক গুরুত্বপূর্ণ

About Alexander Beckenbauer

Check Also

সেই কিশোরের মৃত্যুদণ্ড বাতিল করলো সৌদি আরব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- সৌদি আরবে ১৩ বছর বয়সে আটক মুর্তাজা কুরেইরিসকে দেওয়া মৃত্যুদণ্ড বাতিল করেছে দেশটির …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *